Home / Tutorial / পিসি কম্পিউটার এর ইন্টানেট গতি বাড়ানোর সহজ কিছু উপায়

পিসি কম্পিউটার এর ইন্টানেট গতি বাড়ানোর সহজ কিছু উপায়

সাধারণত আপনার কম্পিউটার এর হারড ওয়ার ও সফট ওয়ার জাতীয় কিছু সমস্যার কারণে আপনি কম্পিউটার এর ইন্টারনেট স্পিড এ ধীর গতির সম্মুখীন হতে পারেন। তবে এটা আপনি নিজেই সমাধান করতে পারবেন। আজকে আপনি সহজ কিছু উপায় আলোচনা করবো আপনার পিসি কম্পিউটার এর ইন্টারনেট এর স্পিড বাড়ানোর জন্য যদি না আপনার ইন্টারনেট সারভিস প্রভাইডার এর থেকে কোনো ঝামেলা না থেকে থাকে তো চলুন শুরু করা যাক।

রাউটার রিস্টার্ট করে আবার চালু করুন

এই জিনিস ও এর সমস্যার সাথে হয়তো আপনি আগে থেকেই পরিচিত কারণ আমাদের দেশের সব ইন্টানেট ওয়াইফাই ব্যবহারকারীই রাউটার নিয়ে একবার হলেও সমস্যায় পড়েছে। আবার আপনি যদি আপনার ইন্টারনেট সারভিস প্রভাইডার কে কল করে বলেন যে আপনার ইন্টারনেট কোনো একটা সমস্যা হচ্ছে তারা সবার আগে আপনাকে বলবে আপনার রাউটির টী রিস্টার্ট করার জন্য । এর কারণ অনেক সময় আমাদের রাউটার গুলি তার ক্ষমতা শক্তি অতিক্রম করে ফেলে । উচ্চ গতির ইটারনেট এবং একই সংগে অনেক গুলি ডিভাইস এ কানেক্টেড থাকার কারণে সঠিক ভাবে স্পিড ডিস্ট্রিবিউট করতে না পেরে রাউটার এর ইস্টেম ল্যাগ করে। এমতাবস্থায় আপনি আপনার রাউজটার কে রিস্টার্ট করলে ইন্টারনেট স্পিড ও নেটওয়ার্ক হ্যাং জাতীয় সমস্যা থেকে সমাধান পাবেন।

পিং স্ট্যাটাস চেক করুন

পিং উইন্ডোজের একটি কমান্ড-লাইন ইউটিলিটি যা মূলত পরীক্ষা করে যে আপনার ডিভাইসটি আপনার ইন্টারনেট পরিষেবা প্রদানকারীর কাছ থেকে সঠিক কানেকশন পাচ্ছে কিনা এবং রেস্পন্স পেতে কত সময় লাগছে। পিং কমান্ড প্রদান করলে এটি আপনাকে আপনার ডিভাইসে বিভিন্ন পাবলিক ডিএনএস দিয়ে পিং করার অনুমতি দেয় যাতে আপনি ইন্টারনেটে কতটা স্পিড ডাউন এর সম্মুখীন হন এবং কত প্যাকেট ফেস এর ক্ষতির সম্মুখীন হন তা দেখতে পারেন।

পিং চেক করতে, Win + R চাপুন চেক করতে এই কমান্ডটি টাইপ করুন: ping 8.8.8.8 -t
আপনি যদি টার্মিনাল কমান্ডে পরপর একাধিক লাইন আপডেট হতে দেখতে পান, তাহলে আপনি Ctrl + Pause Break বাটন চাপ দিয়ে য়াপনার পিং এর ডিটেইলস চেক করতে পারেন। এটি কোনো পারমানেন্ট সমাধান নয়, তবে এটি আপনাকে আপনার সমস্যা জানতে সাহায্য করবে। এবং আপনি তখন বিষয় টি আপনার ইন্টারনেট সারভিস প্রভাইডার কে খুলে বলতে পারবেন।

কম্পিউটার রিস্টার্ট করুন

যদিও এটি হাস্যকর মনে হতে পারে, উইন্ডোজের যে কোনও সমস্যার এই সাধারণ সমাধান প্রায়ই জাদুর মতো কাজ করে। আপনি ধরে নিতে পারেন যে উইন্ডোজ ডেস্কটপ ব্যবহার করার সময় আপনি যে সফটওয়্যার সমস্যার মুখোমুখি হন তার ৮০% আপনার ডিভাইসটি একবার পুনরায় চালু করলে ঠিক করা যায়। এটি স্লো ইন্টারনেট ঠিক করতেও কাজ করে।

ওয়াইফাই এডাপ্টার বা অনু

আপনি যদি আপনার ডেস্কটপের জন্য ওয়াইফাই অ্যাডাপ্টার ডিভাইস বা অনু ব্যবহার করে আপনার ওয়াইফাই কানেকশন সেটাপ করে থাকেন এবং ইন্টারনেট ব্যবহার করেন, তাহলে সেই ডীভাইস অনু এর কারণে ইন্টারনেট স্পিড স্লো হতে পারে। আপনার রাউটার কে ইন্টারনেট সাপ্লাই দেয় অনু ডিভাইস টি তাই অনু যদি ভালো কোয়ালিটীর না হয় তবে সেখানে প্রবলেট হবেই।

উইন্ডোজ আপডেট

উইন্ডোজ আপডেট এর কারণে কম্পিউটার স্লো হয়ার সমস্যা কেউ জানেও না হয়তো তেমন । আপনার কম্পিউটার অবশ্যই উইন্ডোজ এ রানিং আর উইন্ডোজ নিজে থকেই আপডেট হয়ার পারমিশন আগে থকেই নিয়ে রাখে তাই সমস্যা হয় । সেটিংস থেকে অটো উইন্ডোজ আপডেট বন্ধ না করলে আপনি কিছু কাজ করছেন আর সে সময়ে উইন্ডডোজ ও আপডেট নিতেই আছে তো ইন্টারনেট স্পিড তো স্লো হবেই।

উপরে উল্লিখিত এই ধাপ গুলি অনুসরণ করার অর্থ এই নয় যে আপনার ইন্টারনেট স্পিড রকেট এর মত হয়ে সব সমস্যা ঠিক হয়ে যাবে, যদি না হয়, তাহলে অন্তত নিশ্চিত করবে যে ইন্টারনেট সমস্যাটি আপনার বা আপনার ডিভাইস অথবা আপনার ইন্টারনেট সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান এর । তাই আপনার উচিৎ হবে তাদের অফিসে গিয়ে খুলে বলা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.