Home / Others / পাবজি ও ফ্রি ফায়ার বন্ধেই কি সমাধান ?

পাবজি ও ফ্রি ফায়ার বন্ধেই কি সমাধান ?

বেশ কিছুদিন ধরেই শুভাকাঙ্ক্ষী বিজ্ঞ জনেরা PUBG/Freefire বন্ধের জন্য উঠে পড়ে লেগেছেন৷ বেশ ভালো কথা। আপনাদের চাওয়া পূর্ণ হয়েছে দেশে পাবজি ফ্রি ফায়ার এর মত আন্তর্জাতিক গেমস গুলি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। কিন্তু এতে ফল টা কি লাভ হয়েছে নাকি ক্ষতি সেটা কি ভেবে দেখেছেন..? আসুন আজ সে ব্যাপারেই আলোচনা করবো তাহলে চলুন শুরু করা যাক।

ফিল্ম দেখতে গিয়ে কেউ যদি ফিল্ম এর আসক্ত হয়ে যায়, তার ফ্রি ফিল্ম এ হচ্ছে না নেটফ্লিক্স লাগবে, জি সিরিজ এর প্রিমিয়ার প্যাক লাগবে, তাহলে কি আপনি বলবেন যে দেশ থেকে ফিল্ম উঠিয়ে দেওয়া হোক? আর গেইম এর পজিটিভ দিক সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন অনেকেই। একটু না বললে কেমন হয়ে যায় তাই না?

১. আপনি মনে হয় Worldwide গেমিং এর মার্কেট সম্পর্কে তেমন একটা খোঁজ রাখেন নাই। গেমিং ইন্ডাস্ট্রি সম্পর্কে একটু কষ্ট করে গুগল করে দেখেন আশা করি এর ভালো উত্তর পেয়ে যাবেন।

২. কে কোন বিষয়ে বিনোদন পাবে সেটা তার একান্ত নিজের রুচির ব্যাপার। আমি মাঠে খেলবো, না মাছ ধরবো, না ফিল্ম দেখে বিনোদন নিবো তা আমার নিজের চয়েসের ব্যাপার। কেউ যদি তার অবসর সময়কে বিনোদনের জন্য গেইম কে বেছে নেয় তাহলে আমি মনে করি এটা at least টিক টক আর বস্তা পচা ইন্ডিয়ান সিরিয়াল দেখার চেয়ে ভালো।

৩. আর একটা বড় বিষয়, দেখেন ভাই জেনারেশন এ অনেক পরিবর্তন এসেছে লাস্ট ৩০ বছরে। প্রযুক্তির ডেভেলপমেন্ট এর সাথে সাথে মানুষের দৈনিক কাজ কর্মেও অনেক পরিবর্তন এসেছে। আর সমস্যাটা এখানেই। এই ধরেন, এখন ঘরের মধ্যে বসে কম্পিউটার এ কাজ করি আর যাই করি না কেনো Somehow বাবা মা বা উনাদের জেনারেশন এর মানুষেরা মনে করেন যে মনে হয় আজাইরা টাইম নষ্ট করছি/সিনেমা দেখছি বা ফেসবুকিং করছি। ভাই এখান আর ২০০০-২০১০ সালে পড়ে নাই। এখনও যদি কম্পিউটার মানেই ভিডিও দেখা আর টাইপ করা মনে করা হয় তাহলে দাদা একটা বিশাল বড় জেনারেশন গ্যাপ হয়ে গেলো না?

এসব নিয়ে আমি নিজেও অনেক বার অনেক অস্বস্তি কর পরিস্থিতিতে পড়েছি। তাই আমার মনে হয় বিষয় গুলো এই ভাবে চাপিয়ে না দিয়ে, কি করছে না দেখে না বুঝে হুদাই সারা দিন গেইম খেলছে এই বানী খানা জুড়ে দেওয়াটা খুবই অযৌক্তিক বিষয় বটে !

আর যারা ভাই সারা দিন খাওয়া দাওয়া বন্ধ করে গেইম খেলার জন্য জীবন দিচ্ছে দয়া করে একটু বোঝান ভালো ভাবে। সারাদিন অফিস করে এসে ফেইসবুক ওপেন করে নিজের বিনোদন নিজে খুঁজবেন, সন্তানকে সময় দিবেন না, কি পড়ছে না পড়ছে খোঁজ রাখবেন না! তাহলে দাদা আপানার সন্তান থেকে এর চেয়ে বেশি কিছু আশা করা যায় না। যেকোনো ধরনের আসক্তিই খারাপ। আপনার সন্তানকে যখন বেশি অন্য কোনো কিছুতে আসক্ত হতে দেখলে যেভাবে নিয়ন্ত্রণ করতেন আশা করি এবার ও সেইম কাজ টাই করবেন। যুগ বদলে গিয়েছে।

এখন আর মাঠে খেলার মত জায়গা বা পরিবেশ কোনো টাই আগের মতো নাই। আর পরিবেশ থাকলেও নিজেদের রুটিন গুলো এমন হয়ে গিয়েছে যে সময় নাই। সারাদিন স্কুল কলেজ আর টিউশনির পিছনে দৌড়িয়ে খুব কম সময়ই পাওয়া যায় নিজের জন্য। আর সেই সব কারনেই হয়তো জীবনও যান্ত্রিক হয়ে যাচ্ছে। আর এই যান্ত্রিক জীবনের বিনোদন গুলাও যান্ত্রিক হওয়া টাই হয়তো নরমাল। গেইম তুলে দেওয়ার লজিকহীন দাবি বাদ দিয়ে খেয়াল রাখেন কোন বয়সে ছেলের হাতে স্মার্টফোন তুলে দিয়েছেন!

আজ এ পর্যন্তই, আপনার কি মতামত আমাদের কে কমেন্ট করে জানান।

Check Also

বন্ধ হয়ে গেলো ইন্ডিয়ান সকল জালাময়ী সিরিয়াল

শুধু ইন্ডিয়া নয় বিদেশী সকল চ্যানেল যেগুলি অনুসঠান এর পাশাপাশি বিজ্ঞাপন প্রচার করে সেই সকল …

Leave a Reply

Your email address will not be published.