Home / Tech News / এবার ভারতে ভিপিএন বন্ধ করার জন্য সুপারিশ করা হল

এবার ভারতে ভিপিএন বন্ধ করার জন্য সুপারিশ করা হল

এবার ভারতের স্বরাষ্ট্রবিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটি নিরাপত্তা জনিত কারন দেখিয়ে ভিপিএন বন্ধ করার সুপারিশ জানিয়েছে।তাঁরা জানিয়েছে ভিপিএন এর অবাধ ব্যাবহারের কারনে অনেক অপরাধীকেই শনাক্ত করা সম্ভব হয়ে উঠছে না।তবে সেদেশের প্রথম সারির মিডিয়া ইন্ডিয়া টুডে বলছে সাইবার অপরাধ বন্ধ করার জন্য ভিপিএন বন্ধ করতে চাইলে তা সুবিধার চাইতে অসুবিধাই বেশী সৃষ্টি করবে।

ভিপিএন এর পুরো অর্থ হল ভার্চ্যুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক।অর্থাৎ,যখন কেউ ভপ্ন ব্যাবহার করবে তখন ভিপিএন সেই ইন্টারনেট ব্যাবহারকারীকে সাধারণ ইন্টারনেট বেবহারকারিদের থেকে আলাদা করে ফেলবে এবং একটি ব্যাক্তিগত নেটওয়ার্ক সৃষ্টি করবে।এবং এখানে যে তথ্যর আদান প্রদান হবে তা প্রেরক আর প্রাপক ছাড়া কেউ দেখতে পারবে না।আবার তাঁর লোকেশনো শনাক্ত করা সম্ভব হবে না।যদি কেউ ভিপিএন ব্যাবহার করে তাহলে সে খুব সহজেই ভারতে অবস্থান করে ইন্টারনেট ব্যাবহার করে তাঁর অবস্থান ইউএসএ দেখাতে পারে।

ভিপিএন মূলত ব্যাবহার করা হয় নিজের পরিচয় গোপন রাখার জন্য তবে অনেক সময় ভালো কাজের জন্য অনেকেই ভিপিএন ব্যাবহার করে থাকেন।যেমন কেউ হয়ত চাকুরী করে সে হয়ত বাসা থেকে তাঁর কম্পিউটার ব্যাবহার করে তাঁর অফিসের কম্পিউটার নেটওয়ার্কে প্রবেশ করতে চাচ্ছে।এখন যদি সাধারণ ব্যাবহারকারীদের মত প্রবেশ করে তাহলে ইন্টারনেট সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান খুব সহজেই তাঁর অফিসিয়াল ইনফর্মেশন পেয়ে যেতে পারে এবং এতে করে তাঁদের অফিসিয়াল কম্পিউটার নেটওয়ার্ক ঝুঁকির মুখে পড়তে পারে।আবার অনেক সময় কোন নিষিদ্ধ নেটওয়ার্কে প্রবেশ করার জন্যও ভিপিএন ব্যাবহার করা হয়ে থাকে।যেমনঃ চায়নাতে গুগল নিষিদ্ধ কিন্তু যেকেউ চাইলে ভিপিএন ব্যাবহার করে চায়না থেকে গুগল ব্যাবহার করতে পারে।

কিন্তু ভারতের ভিপিএন নিয়ে কেন এত দুশ্চিন্তা?তাঁরা বলছে ভিপিএন এর অবাধ ব্যাবহারের ফলে কেউ অপরাধ করলে তাঁদের শনাক্ত করতে পারছে না আইন প্রয়োগকারী সংস্থা।তাঁরা বলছে ভিপিএন ব্যাবহার করে অপরাধ করে তাঁরা ধরা ছোঁয়ার বাহিরে থেকে একের পর এক অপরাধ করে যাচ্ছে।যা দেশ এবং সমাজের জন্য অনেক বড় ঝুঁকি।

কমিটি সুপারিশ করেছে, ভিপিএন বন্ধ করার জন্য তাঁরা ইন্ডিয়ার ইলেকট্রনিকস ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়,ভারতের ইন্টারনেট সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান এবং আন্তর্জাতিক সংস্থা গুলোর সাথে কাজ করবে তাঁরা (ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়)।তাঁরা আরও জানিয়েছে যেন স্থায়ী ভাবে ভিপিএন বন্ধ করা যায় সেই লক্ষে তাঁরা এসব প্রতিষ্ঠানের সাথে নিয়মিত সমন্বয় করে কাজ করবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.