Home / Tutorial / দেখে নিন বিদেশ থেকে ফোন আনতে যে নতুন নিয়ম গুলি মানতে হবে

দেখে নিন বিদেশ থেকে ফোন আনতে যে নতুন নিয়ম গুলি মানতে হবে

মোবাইল ফোনের সঠিক বৈধতা যাচাইয়ে চালু হলো বাংলাদেশে ন্যাশনাল ইকুইপমেন্ট আইডেনটিটি রেজিস্ট্রার (এনইআইআর) এর সু ব্যবস্থা। গত বৃহস্পতিবার এ কার্যক্রম তিন মাসের জন্য পরীক্ষামূলকভাবে চালু করা হয়েছে। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন বা এক কথায় (বিটিআরসি) এই ব্যবস্থা চালুর করার পর কীভাবে প্রবাসীদের বিদেশ থেকে মুঠোফোন নিয়ে আসা যাবে সে ব্যাপারে তারা বিস্তাতারিত জানিয়েছে এবং এর অপরদিকে গ্রাহক দের সম্ভাব্য বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর ও তারা দিয়েছেন।

মোবাইল ফোন চুরি হলে যথাযথ কাগজ পত্র প্রমান সহ জমা দিয়ে হ্যান্ডসেটটি ফেরত পাওয়ার করার কোনো ব্যবস্থা থাকবে কি না?

উত্তর: হ্যা মোবাইল ফোন গুলি যখন বিটিআরসি এর আওয়াতভুক্ত হয়ে যাবে তখন সম্পূর্ণ কন্ট্রোল থাকবে তাদের কাছে যাতে করে কোনো এ ধরনে ঝামেলা হলে তারা তাতক্ষনিক ভাবে এই সমস্যার সমাধান করে দিতে পারেন। বিদেশ থেকে ফেরার সময় প্রবাসী কতটী মোবাইল ফোন আনতে পারবেন এই প্রশের উত্তরে বলা হয়েছে একজন ব্যাক্তি লাগেজ ব্যাগ রুলস অনুযায়ী শুল্ক প্রদান করে ছয়টি ও শুল্ক প্রদান না করে মোট দুটী মোবাইল ফোন আনতে পারবেন।

বিদেশ থেকে আনা মোবাইল টী ডাটাবেজ এ নিবন্ধিত হুয়েছে কিনা জানতে মোবাইল টীর মেসেজ অপশনে গিয়ে KYD১৫ ডিজিটের IMEI নম্বর লিখে ১৬০০২ নম্বরে ডায়াল করলেই ফিরতি ম্যাসেজ এ জানা যাবে ডীটেইলস। অবশ্য ফিরতি ম্যাসেজ টি পেতে গ্রাহক এর সরবোচ্চ ১০ দিন সময় লাগতে পারে।

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন এর এই পদক্ষেপ্টী আসলেই অনেক জরুরী বলে মনে করি কারণ আধুনিকতার ছোয়ায় এবং স্মারটফোনের সহজ লভ্যতায় মানুষ নিত্য নতুন সকল ডিভাইস ব্যাবহার করছে এবং কিছু অসাধু চক্র নিজেদের অধিক লাভের আশায় সরকার কে ন্যায্য ভ্যাট ট্যাক্স প্রদান না করেই চোরা চালানের মত করে বিদেশ থেকে অগনিত মোবাইল ফোন আনছে যার ফলে দেশের অরথনীতি তে ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে।

দেশের এই সমস্যার কথা মাথায় রেখে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন এই নতুন প্রযুক্তির মাধ্যমে অসাধু চক্র কে নাজেহাল করার মক্ষম অস্ত্র বানিয়েছে। যদিও এই প্রযুক্তি কারযকর হতে কতদিন সময় লাগবে পরিপূর্ণ ভাবে তার কোনো নিশ্চয়তা নেই কারণ টা আমরা সবাই জানি। তাই নিজেদের কস্টের টাকার মোবাইল টি যেনো অনাকাংখিত ভাবে বন্ধু না হয়ে যায় সেজন্য আমাদের নিজেদের কেই সকল নিয়ম কানুন মেনে মোবাইল ফোন আনা ও ক্রয় করা উচিৎ।

আপনার মোবাইল ফোন টি নিবন্ধিত কিনা যাচাই করার জন্য IMEI নাম্বার লিখে ভ্যারিফাই করে নিতে পারেন । যদি না হয়ে থাকে তবে সংস্লিস্ট নিয়ম অনুসারে নিবন্ধন করে নিতে হবে নতুন আপনার মোবাইল ফোন টী সয়ংক্রিয় ভাবে বন্ধ হয়ে যাবে।

বিদেশ থেকে আনা মোবাইল ফোন গুলির শুল্ক পরিশোধ সাপেক্ষে আনা সর্বোচ্চ ছয়টি মোবাইল হ্যান্ডসেট নিবন্ধনের জন্য পাসপোর্ট নম্বর, পাসপোর্টে এয়ারপোরট থেকে ইমিগ্রেশনের দেওয়া সিল করা পাতার স্ক্যান/ছবি ও কাস্টমস শুল্ক পরিশোধ এর সংক্রান্ত সকল প্রমাণ পত্রের স্ক্যান / ছবি লাগবে। বিদেশ থেকে যেসব মোবাইল কুরিয়ারের মাধ্যমে আনা হয়েছে সেগুলো নিবন্ধনের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ কমার্শিয়াল ইনভয়েসের স্ক্যান / ছবি, প্রাপকের জাতীয় পরিচয় পত্রের স্ক্যান / ছবি এবং বাংলাদেশ কাস্টমস এর শুল্ক পরিশোধ রিলেটেড সকল প্রমাণ পত্রের স্ক্যান / ছবি জমা দিতে হবে এবং আইনগত ভাবে সম্পন্ন করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.