Home / Others / গুগল বললো বৈশ্বিক তাপ মাত্রায় শীর্ষক শহর ঢাকা

গুগল বললো বৈশ্বিক তাপ মাত্রায় শীর্ষক শহর ঢাকা

জলীয় বাস্প, বাতাসের আদ্রতা, অক্সিজেন এর ওজন স্তর সব কিছুই নির্ভর করে সবুজ গাছ গাছালি এর উপর কিন্তু বাংলাদেশ এর প্রাণ কেন্দ্রিক শহর ঢাকায় সেই গাছ এর দেখা কোথাও নেই। এর ই ফল সরুপ বৈশ্বিক তাপ মাত্রায় শীর্ষক শহর এখন আমাদের প্রান এর শহর ঢাকা ।

দিন দিন বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধির সঙ্গে দ্রুত গতি তে জন সংখ্যা ও বাড়ছে শহর গুলো তে। এ দুটি এর প্রভাবে মারাত্মক হয়ে উঠছে সেখান কার তাপ মাত্রা। আর এই চরম উষ্ণতার কারণে বিশ্বের মধ্যে সব চেয়ে ক্ষতি গ্রস্ত শহরের তালিকার শীর্ষে রয়েছে ঢাকা। সম্প্রতি বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধির এক আন্তর্জাতিক গবেষণায় তীব্র ক্ষতির আশঙ্কা জনক এ তথ্য উঠে এসেছে রিপোর্ট এ ।

যুক্ত রাষ্ট্র এর কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটি
ইউনিভার্সিটি অফ মিনে সোটা
ইউনিভার্সিটি অফ অ্যারিজোনা ও
ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়ার এর গবেষণা কারী একদল গবেষকরা যৌথ ভাবে গবেষণা টি সফল করেছে । তাদের রিপোর্ট অনুযায়ী গত সোমবার এ ৪ অক্টোবর বিজ্ঞান বিষয় এর উপর এক সাময়িকী প্রসি-ডিংস অফ দ্য ন্যাশনাল একাডেমি অফ সায়েন্স এস -এ ওই গবেষণা এর ফল গুলি প্রকাশ করা হয়েছিলো ।

তীব্র কিংবা চরম তাপ মাত্রায় থাকা সব চেয়ে ক্ষতি গ্রস্ত এবং বিপদ মুখী শহর ঢাকা এর প্রসঙ্গে সেই গবেষণা পত্রে বলা হয়েছে যে, ১৯৮৩ সালে এ শহর এর যেই জন সংখ্যা ছিল যেখানে ৪০ লাখ । কিন্তু সেখানে এখন বেড়ে দাড়িয়েছে প্রায় ২ কোটি ২০ লাখ মানুষ এ। বসবাস করছে পুরো বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ সকল শহর থেকে আগত মানুষ জন দেশের রাজধানী ঢাকা তে ।

এ দিক চরম তাপ মাত্রা বৃদ্ধি তে সব চেয়ে ক্ষতি গ্রস্ত দেশ এর তালিকায় নাম তুলে বাংলাদেশ কোনো পুরস্কার না পেলেও বিশ্ব বাসীর কাছ থেকে তিরস্কার ঠিকই পাচ্ছে কারণ এরকম হাতে গোনা কিছু বিশেষ দেশ ও শহর এর কারণে পুরো প্রিথিবী বড় আকারের হুমকির সম্মুখীন হচ্ছে ।

এদিকে এই উচ্চ স্তরে ঠাঁই যেহেতু হয়েছে বাংলাদেশের তাই ইউরোপীয় কিছু ওয়েল ফেয়ার এনজিও আগ্রহ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশের মত উদীয়মান উন্নয়নশীল দেশ কে তারা এই সমস্যা থেকে বেরিয়ে আসতে যাহায্য করবে । এ তালিকায় শীর্ষ স্থানে ভারত, এর পরই বাংলাদেশ।

বিভিন্ন এন জি ও বাংলাদেশ এ এসে ঢাকা সিটি কে জন বহুল হওয়ার মাঝেও নতুন করে সাজিয়ে এই ম্যাস মিডিয়া প্রজেক্ট কে সফল করার নতুন সপ্ন দেখছে । তবে সেক্ষেত্রে বাংলাদেশ সরকার এর কি মতামত তা এখনো জানা যায় নি ।

গবেষকরা যেই গবেষণা করেছেন সেখানে ১৯৮৩ সাল থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত এক টানা ৩৩ বছর তারা বিশ্বের প্রায় ১৩ হাজার শহর এর উষ্ণতা ও বাতাস এর আর্দ্রতা পর্যবেক্ষণ করেছেন । যে সকল শহরের তাপ মাত্রা ৩০ ডিগ্রি কিংবা তার বেশী সেলসিয়াসের ওপর থাকে, তাদের কেই চরম তাপ মাত্রায় ক্ষতি গ্রস্ত দেশ বা শহর হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছে এই গবেষণায় । এর পর অন্য শহর গুলোর বাসিন্দা দের তথ্যের সঙ্গে সেগুলো তুলনা করা হয়।

গুগল জানিয়েছে মার্কিন এ সকল গবেষক দের মতে, এমন উন্নয়ন শীল দেশ গুলি আরথ সামাজিক দিক থেকে উন্নতির দিকে ধাবিত হলেও গত কয়েক যুগ যাবত গ্রাম থেকে মানুষ শহরে আসার ফলে সেখানে বেড়েছে জন সংখ্যা যার ফল এই উচ্চ তাপমাত্রা।

Check Also

বন্ধ হয়ে গেলো ইন্ডিয়ান সকল জালাময়ী সিরিয়াল

শুধু ইন্ডিয়া নয় বিদেশী সকল চ্যানেল যেগুলি অনুসঠান এর পাশাপাশি বিজ্ঞাপন প্রচার করে সেই সকল …

Leave a Reply

Your email address will not be published.