Home / Tech News / বাজারে এলো এ্যাপল এর নতুন চিপসেট M1X

বাজারে এলো এ্যাপল এর নতুন চিপসেট M1X

অ্যাপলের সেপ্টেম্বর বিশেষ ইভেন্টটি সবেমাত্রই শেষ হয়েছে এবং তাদের অক্টোবর ইভেন্টটি ও একেবারেঈ কাছাকাছি । এরই মাঝে তারা তাদের নতুন ম্যাকবুক প্রফেশনাল এবং একটি আরোও নতুন আরো শক্তিশালী ম্যাকবুক মিনি প্রকাশ করেছে, যার উভয়টিতেই অ্যাপলের নতুন এবং আপগ্রেড করা এম 1 এক্স চিপ থাকবে যা সম্ভবত অ্যাপলের সবচেয়ে শক্তিশালী চিপ সেট এখন অবদি। দেখে নেয়া যাক কি কি থাকছে এই চিপ্সেট এ

এ্যাপল যখন থেকে তাদের নতুন সিলিকন চিপসেট বানানো সুরু করেছে তারপর পর্যন্ত সাফল্য ছাড়া আর কিছুই তাদের বাধা হয়নি এবং এই প্রকল্পের ভবিষ্যত আরও উজ্জ্বল দেখায় কারণ তাদের আপগ্রেড সব সময়ই অব্যাহত থাকে এবং তারা তাদের প্রসেসর উন্নত করার জন্য ক্রমাগত কাজ করে চলেছে।

নেক্সট জেনারেশন প্রসেসর M1X

বর্তমান জেনারেশন এর সাথে তাল মিলিয়ে চলতে এবং তাদের প্রয়োজন মেটাতে সক্ষম এই প্রসেসর। হাই কোয়ালিটী গেমিং পারফরম্যান্স, ভিডীও কোয়ালিটী , মুভি রেকরডিং , ক্যামেরা , স্পিড , ব্যাটারি অপটি মাইজেশন যেটাই প্রয়োজন সেটাই সরবোচ্চ পারফরমেন্স দিতে প্রস্তুত এই এ্যাপল এর নতুন চিপসেট M1X

বর্তমান এম 1 এর মোট 8 টি সিপিইউ কোর রয়েছে যার মধ্যে 4 টি উচ্চ কর্মক্ষমতার জন্য উপযুক্ত উচ্চ-কার্যক্ষম ৪ টি কোর এবং বাকি চারটি উচ্চ শক্তিশালী কোর । নতুন এই চীপসেট এ মোট ১০ টী কোর আছে। নতুন M1X মোট 10 টি কোর নিয়ে আসবে যার মধ্যে 8 টি উচ্চ-কার্যক্ষম কোর এবং তাদের মধ্যে মাত্র 2 টি শক্তি-দক্ষ কোর। এই অধিক কোর স্থাপন এর কারণে এই চীপসেট এত পাওয়ার হয়ে এসেছে বাজারে। এর আগে যে M1 চীপসেট ছিলো সেটা ছিলো সস্তা এবং কম শক্তিশালী ডিভাইসের জন্য তৈরি লো-এন্ড চিপ সেট। এর আগে যে সকল চীপসেট বাজারে এনেছিলো তারা সেগুলি সে সময়ের কাজের জন্য সে সম্যের অনুপাতে হিসাব করে তাদের কাজের জন্য বানানো হয়েছিলো কিন্তু এখনকার কাজের জন্য আরোও শক্তির প্রয়োজন নতুন এই চীপসেট এর শক্তি র কারণে এপ্যাল তাদেরে মারকেট ভ্যালু হারাতে পারে। কিনতু এপ্যাল এর মত এত বড় টেক জায়েন্ট কখনোই তাদের মারকেট এর শেয়ার ভ্যালু কমতে দেবে না। তাই তারা সবকিছুর কথা মাথায় রেখে এবার বাজারে এনেছে এই জেনারেশন এর জন্য একদম পারফেক্ট কিলার চীপ সেট।

ডীভাইস ভ্যারিয়েশন

এ্যাপল এখনো টেক মারকেট এ তাদের এই চীপসেট সম্পরকে খোলাসা করেনি সেভাবে তাই আমরা এখনও নিশ্চিত নই যে এটি ঠিক কিভাবে কাজ করবে, কিন্তু সম্ভবত অ্যাপল তাদের দুটি ভেরিয়েন্ট প্রকাশ করবে, একটি 16 টি কোর সহ সস্তা ডিভাইসের জন্য, এবং আরেকটি 32 টি কোর সহ তাদের আরো ব্যয়বহুল ডিভাইসের জন্য, যেমন ম্যাকবুক প্রো 16-ইঞ্চি।

বেঞ্চমারক রেজাল্ট

অবশ্যই, অনেক কিছুই এখনও নিশ্চিত নয়, কিন্তু এই নতুন চীপসেট নিয়ে টেক বাজারে অনেকেই অনেক গুজব প্রকাশ করেছে। কিন্তু এখনো এ্যাপল এখনো টেক মারকেট এ তাদের এই চীপসেট সম্পরকে খোলাসা করেনি। অবশ্য যারা টেক গ্যাজেট এক্সপার্ট তারা তাদের এক্সপিরিয়ান্স থেকেই ধারনা করতে পারেন যে নিশ্চিত ভাবেই এই চীপসেট হবে একটা আস্ত কিলার বীস্ট যা অন্যান্য ডিভাইস এর মারকেট দুমড়ে মুচড়ে নিজের জায়গা করে নেবে।

CPU monkey নামক ওয়েব সাইট থেকে লীক হয়া খবর থেকে জানা যায় যে সকল ডেটা অনুসারে, নতুন এম 1 এক্সের সিঙ্গেল-কোর এবং মাল্টি-কোর ইন্টেলের আই 7–11700 কে চিপের মতো হবে। যাইহোক, তাদের মতে, নতুন চিপটি 12 সিপিইউ কোর দিয়ে মুক্তি পাবে এবং গুজব এ বলা হয়েছে 10 যা সত্য নয়।

অবশ্যই, এখন পর্যন্ত কিছুই নিশ্চিত নয়, এবং চূড়ান্ত পণ্যটি বাজারে প্রকাশিত হলে জিনিসগুলি সম্ভবত কিছুটা ভিন্ন হবে এবং আমরা দেখি অ্যাপল আসলে কীভাবে এটি পরিচালনা করার সিদ্ধান্ত নেয় । অ্যাপলের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ নতুন চিপ কতটা শক্তিশালী হবে তার সহজ ধারণা এবং যদি এই সংখ্যাগুলো প্রকৃত জিনিসের প্রতিফলন হয়, তাহলে এটি স্বর্ণের বানানো চীপসেট হবে এ্যাপল ডিভাইস ব্যাবহারকারীদের কাছে।

নীচে কমেন্ট করে জানান এ্যাপল এর নতুন চিপসেট M1X সম্পরকে আপনার ধারণা কি এবং পরবর্তী লেখায় আপনি কোন টপিক সম্পরকে জানতে চান আজকের মত এখানেই শেস করছি ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.